টাঙ্গাইলে ছেলেতে রূপান্তরিত হলো কিশোরী!

প্রকাশিত: ১১:১৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২১

টাঙ্গাইলে ছেলেতে রূপান্তরিত হলো কিশোরী!

 

জাগো সখীপুর ডেস্ক:

লাবনী আক্তার, বয়স ১৫ বছর। এবার এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা তার। এর মধ্যে ঘটে গেল এক আশ্চর্য ঘটনা! মেয়ে থেকে ছেলেতে রূপান্তরিত হয়ে গেছে সে। গতকাল শুক্রবার সকালে ঘটনাটি জানাজানি হয়। অবশ্য বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই লাবনীর শারীরিক পরিবর্তন হচ্ছিল বলে জানা গেছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা শামছুল হক এন্টারপ্রাইজ

মোবাইল : ০১৭১২ ৪৬৩৫৬২

 

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের নঠুরচর পশ্চিম পাড়া গ্রামে। ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসছে তাকে একবার দেখার জন্য। লাবনীদের বাড়ির সামনে এখন সারা দিনই গিজগিজ করছে উৎসুক মানুষ।

শনিবার সকালে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাড়িতে কয়েক হাজার উৎসুক মানুষের ভিড়। প্রতিবেশীরা জানান, বেশ কয়েকদিন আগেই লাবনীর পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়।

এ নিয়ে কথা হয় লাবনী আক্তারের বাবা লাভলুর সঙ্গে। তিনি বলেন, তাঁর মেয়ে এবার উপজেলার হাতেম আলী বিএল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দেবে। গত বৃহস্পতিবার তিনি স্ত্রী পারভীন আক্তারের কাছ থেকে বিষয়টি প্রথম জানতে পারেন।

লাভলু বলেন, লাবনী তার মাকে প্রথম বিষয়টি জানায়। গত শুক্রবার থেকে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মানুষের মুখে মুখে রাষ্ট্র হয়ে যায়। এরপর থেকেই দিনরাত মানুষ ভিড় করছে লাবনীকে দেখার জন্য। এখন তার শারীরিক গঠন পুরুষের মতো হয়ে গেছে। এছাড়া চেহারাতেও কিছুটা পরিবর্তন এসেছে।

ছেলেতে রূপান্তরিত হওয়ার লাবনীর নাম রাখা হয়েছে আবদুল্লাহ জিসান। বাবা লাভলুই এ নাম পছন্দ করে রেখেছেন।

লাবনী আক্তার জানায়, চার-পাঁচ মাস আগে থেকেই এমন কিছু ঘটছে বলে টের পাচ্ছিল সে। কিন্তু লোক-লজ্জার ভয়ে কাউকে কিছু জানায়নি।

লাবনীর মা জানান, ছয় মাস আগে লাবনী আক্তারের বিয়ে ঠিক করা হয় একই উপজেলার মাকুল্লা গ্রামে। তখন লাবনী বিয়েতে অসম্মতি জানায়। তার রূপান্তরিত হওয়ার ঘটনাটি বললে তিনি প্রথমে বিশ্বাস করেননি। পরে দেখে শুনে বিশ্বাস করতে বাধ্য হয়েছেন।

 

তিনি বলেন, আল্লাহ তাকে মেয়ে থেকে ছেলে বানিয়ে দিয়েছে। আগে তাদের দুই মেয়ে ছিল। এখন এক ছেলে ও এক মেয়ে হওয়ায় তাঁরা খুশি।

 

চিকিৎসা বিজ্ঞানে এই ঘটনার ব্যাখ্যা জানতে চাইলে গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলিম আল রাজী বলেন, আমাদের দেশে মাঝে মধ্যেই এ ধরনের ঘটনা ঘটছে। এটা সাধারণত হরমোন পরিবর্তনের কারণে ঘটে।